এইমাত্র পাওয়া

  • কাপ জিতেই ছাড়ব, জন্মদিনে শপথ মেসির
  • প্রাথমিকে ১২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জুলাইয়ে, থাকছে ৬০% নারী কোটা
  • ঝালকাঠিতে সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ধ্রুবতারা’র দোয়া ও ইফতার অনুষ্ঠান
  • ঝিনাইদহে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সেমিনার
  • দেশের কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে
  • ফাঁটা পায়ের যত্নে কিছু পরামর্শ !!
  • ডায়াবেটিস রোগীরা কি রোজা রাখতে পারবে?
  • ওজন কমাবে কালো জিরা
  • হলুদ দাঁতের সমস্যা সমাধান করুন নিমিষেই
  • কিশিমিশের পানি খেলে যে উপকার পাবেন
Updated

খবর লাইভ

আজও জার্মানি ভারতের উন্নয়নের বড় শরিক

?? ??????? ???? ??:??:?? ???? 9025213 ভোট:5/5 1 Comments
Star ActiveStar ActiveStar ActiveStar ActiveStar Active
আজও জার্মানি ভারতের উন্নয়নের বড় শরিক

জার্মান চ্যান্সেলার ম্যার্কেলের ভারত সফরে এই ছবিটাই উঠে এলো৷ সই হলো দু'দেশের মধ্যে ১৮টি সমঝোতাপত্র, যার শীর্ষভাগে আছে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, অপ্রচলিত বিদ্যুৎশক্তি, তথ্য-প্রযুক্তি, প্রতিরক্ষা আর সন্ত্রাসবাদ রোধ ইত্যাদি৷

ভারত-জার্মান সম্পর্ক সময়ের কষ্টিপাথরে যাচাই করা হয়ে গেছে গত ৬০ বছর ধরে৷ ইতিমধ্যে গঙ্গা ও রাইন নদীতে অনেক জল বয়ে গেছে৷ দু'দেশে সরকার বদল হয়েছে, শাসক দল বদল হয়েছে, কিন্তু বন্ধন রয়েছে অটুট৷ বরং উত্তোরত্তর সেই বন্ধন হয়েছে আরও মজবুত৷ ভারত ও জার্মানি একে হয়ে উঠেছে অপরের পরিপূরক৷ তাই ভারত-জার্মান তৃতীয় আন্তঃসরকার আলোচনা বৈঠকে যোগ দিতে জার্মান চ্যান্সেলার আঙ্গেলা ম্যার্কেলের তিন দিনের ভারত সফর নানা দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ৷ টুইটারেও উঠে এসেছে এর নানা দিক৷

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আঙ্গেলা ম্যার্কেল দু'দফায় দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন, দিল্লিতে এবং ব্যাঙ্গালুরুতে৷ ব্যাঙ্গালুরুতে তথ্য-প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদী জার্মানির প্রতি ‘মেক-ইন-ইন্ডিয়া' এবং ডিজিটাল ইন্ডিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ পার্টনার হয়ে ওঠার ডাক দেন৷ বলেন, বর্তমান বিশ্বে যে মন্দাবস্থা চলেছে তার প্রেক্ষিতে ভারত বিদেশি লগ্নির উজ্জ্বল গন্তব্য৷ বিশেষ করে পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করার বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে ভারতে৷ আর তার জন্য বিদেশি লগ্নির অনুকূল পরিবেশ তৈরিতে নানা রকম সুবিধা দেবার কথাও বলেন তিনি৷ যেমন, মেধাস্বত্ত্ব সুরক্ষা, পণ্য ও পরিষেবা করের সুবিধা ইত্যাদি৷

ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রসঙ্গে মোদী বলেছেন, ভারতের সফটওয়্যার উদ্ভাবনী প্রতিভা বিশ্বের হার্ডওয়্যার শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে সন্দেহ নেই৷ বলা বাহুল্য, জার্মানির ইঞ্জিনিয়ারিং জ্ঞান এবং ভারতের তথ্য-প্রযুক্তির উদ্ভাবনী শক্তির সহযোগিতা ছিল ব্যাঙ্গালুরু সম্মেলনের প্রধান ‘থিম'৷ নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে ম্যার্কেলের সফর নিয়ে টুইটও করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী৷

এর আগে গত সোমবার দিল্লিতে একক এবং প্রতিনিধি পর্যায়ের বৈঠকের পর, এক যৌথ বিবৃতিতে মোদী বলেন, জার্মানির শক্তি আর ভারতের অগ্রাধিকার একজোট হয়ে এক নতুন অর্থনৈতিক বিবর্তনের পথ প্রশস্ত করবে৷ শুধু তাই নয়, মেক-ইন-ইন্ডিয়ার এক গুরুত্বপূর্ণ শরিক দেশ জার্মানি৷ তাই সই হয়েছে ১৮টি সমঝোতা চুক্তিপত্র, যার অন্যতম হলো ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, গ্রিন এনার্জি, উচ্চশিক্ষা, তথ্য-প্রযুক্তি, রেলওয়ের আধুনিকীকরণ, নিরাপত্তা, সন্ত্রাস প্রতিরোধ, স্কিল-উন্নয়ন ইত্যাদি৷ আগামী দিনে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক মঞ্চে, বিশেষ করে আগামী ডিসেম্বরে প্যারিসে জলবায়ু চুক্তির প্রেক্ষিতে, ভারত-জার্মান যাতে একই সুরে কথা বলে সেবষয়েও সহমত হয় এই দুই নেতা৷ পরিবেশ সুরক্ষায় সৌরশক্তির মতো গ্রিন তথা নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎশক্তি উত্পাদনে ভারতকে প্রায় ১০০ কোটি ইওরো আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সাহায্য দিতে চেয়েছে জার্মানি৷ কারণ পরমাণু বিদ্যুৎশক্তির ওপর আর আস্থা নেই জার্মানির৷ তারা মনে করে, পরমাণু বিদ্যুৎ উত্পাদন আর্থিক দিক থেকে আর লাভজনক নয়৷ তার সঙ্গে পরমাণু অস্ত্র প্রসার সমস্যা এবং পরমাণু কেন্দ্রে দুর্ঘটনা ও বর্জ পদার্থ অপসারণের দুশ্চিন্তা তো আছেই৷

জার্মান চ্যান্সেলারের সঙ্গে এসেছেন শীর্ষ পর্যায়ের এক প্রতিনিধি দল, যার মধ্যে আছেন চারজন ক্যাবিনেট মন্ত্রী৷ তবে ভারতে জার্মান লগ্নি প্রসঙ্গে একটা অসন্তোষের কথা বারংবার উঠেছে৷ আর সেটা হলো অনুকূল বাণিজ্যিক পরিবেশের জন্য লালফিতার ফাঁস আলগা করতে হবে৷ ভারতের তরফে মোদী সরকার জামার্ন লগ্নির জন্য ‘ফাস্ট-ট্র্যাকের' সুবিধা দিতে রাজি হয়েছে৷ বলেছে আমলাতান্ত্রিক বিধিনিষেধ সহজ সরল করার কথাও৷ উল্লেখ্য, ভারতে বর্তমানে প্রায় ১৬০০টি জার্মান কোম্পানি কাজ করছে, যার মধ্যে ৬০০টি ইঞ্জিনিয়ারিং ক্ষেত্রে৷ দ্বিপাক্ষিক ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিমাণ ২০১৪ সালে ছিল প্রায় ১৮০০ কোটি ইওরো৷ শুধু তাই নয়, ভারত ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির বাস্তবায়নের লক্ষে নতুন উদ্যোগের কথাও বলা হয়েছে৷ সেক্ষেত্রে ইউরোপের প্রধান অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে জার্মানির ভূমিকা অনস্বীকার্য৷

মোদী সরকার আসার পর ভারত ও জার্মানির মধ্যে ভারতীয় স্কুলগুলিতে জার্মান ভাষার পঠন-পাঠন নিয়ে একটা ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল৷ এই সফরে তা দূর হয়েছে৷ স্থির হয় ভারতের কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়গুলিতে ত্রিভাষা সূত্রের অধীনে জার্মান ভাষা আগের মতোই থাকবে৷ পাশাপাশি জার্মানির স্কুলগলিতেও হিন্দি ভাষা চালু করা হবে৷ চ্যান্সেলার ম্যার্কেল মোদীর হাতে ভারত থেকে পাচার হওয়া প্রাচীন একটি দুর্গা মূর্তি তুলে দেন, যেটি এতদিন রাখা ছিল স্টুটগার্ট মিউজিয়ামে৷ আসন্ন দুর্গা পূজার মরশুমে এটাকে এক শুভচিহ্ণ বলে মনে করছে সবাই৷

Loading...
advertisement
সর্বশেষ সংবাদ
এ বিভাগের সর্বশেষ