এইমাত্র পাওয়া

  • কাপ জিতেই ছাড়ব, জন্মদিনে শপথ মেসির
  • প্রাথমিকে ১২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জুলাইয়ে, থাকছে ৬০% নারী কোটা
  • ঝালকাঠিতে সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ধ্রুবতারা’র দোয়া ও ইফতার অনুষ্ঠান
  • ঝিনাইদহে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সেমিনার
  • দেশের কোথাও কোথাও হালকা থেকে মাঝারি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে
  • ফাঁটা পায়ের যত্নে কিছু পরামর্শ !!
  • ডায়াবেটিস রোগীরা কি রোজা রাখতে পারবে?
  • ওজন কমাবে কালো জিরা
  • হলুদ দাঁতের সমস্যা সমাধান করুন নিমিষেই
  • কিশিমিশের পানি খেলে যে উপকার পাবেন
Updated

খবর লাইভ

কোন ফ্রিজ কিনবো, কি কি বিষয়ে খেয়াল রাখবো?

19 July 2017 09:25:47 26062553 ভোট:5/5 5 Comments
Star ActiveStar ActiveStar ActiveStar ActiveStar Active
কোন ফ্রিজ কিনবো, কি কি বিষয়ে খেয়াল রাখবো?

অনেকেই ফ্রিজ কেনার সময় বেশ চিন্তায় থাকেন, কোন ব্যান্ডের ফ্রিজ কিনবেন, কি কি সুবিধা থাকবে, ফ্রস্ট কিনবো নাকি নন ফ্রস্ট কিনবো। তাদের জন্য আজকের এই টিপস।

ফ্রিজ কেনা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে আপনার পরিবরার কত বড় তার উপর। অর্থাৎ আপনার বড় ফ্রিজ লাগবে নাকি ছোট ফ্রিজ বা কত সিএফটি? অবশ্য বাজেট দেখে বোঝা যাচ্ছে ছোট ফ্রিজই কিনবেন। ফ্রিজ সাধারণত দুই ধরনের হয় একটা হল ফ্রস্ট আর একটা নন-ফ্রস্ট। আপনি নন ফ্রস্ট নিতে পারেন। এতে ডিপ ফ্রিজে বরফ জমে গেলেও জিনিস আটকে জায় না। তবে ফ্রস্ট ফ্রিজ গুলো দ্রুত ঠান্ডা করতে পারে। ব্র্যান্ডের ক্ষেত্রে অবশ্যই বলবো বাংলাদেশে LG ফ্রিজের অনেক সুনাম আছে। এছাড়া আপনার যেহেতু কম বাজেট তাই ওয়াল্টন নিতে পারেন খারাপ হবে না। আর একটা জিনিস হচ্ছে সাম্প্রতি বাজারে নতুন যে সব কোম্পানি ফ্রিজ ইম্পোর্ট করছে তাই কেনা উচিত। কারন প্রথম দিকে তারা ভালো জিনিস দেয় আর পরের দিকে নকল বা খারাপ জিনিস দেয়। তারপরেও আমার কেন জানি মনে হচ্ছে আপনার জন্যে ওয়াল্টন ভাল হবে। আর যদি বাজেট বাড়াতে পারেন তাহলে একেবার LG নিয়েন।

ফ্রিজ কেনার পর ব্যবহারের ক্ষেত্রে কয়েকটি টিপসঃ
১। ফ্রিজ এর জন্য পাওয়ার প্লাগটা যেন সব সময় শক্ত/টাইটভাবে সকেট এর সাথে আটকে থাকে সেই দিকে খেয়াল রাখবেন।
২। Stabilizer ব্যবহার করুন ডিলে ফাংশনসহ। ডিলে ফাংশন হচ্ছে হটাত কারেন্ট চলে গিয়ে আবার আসলেও ফ্রিজ চালু হবে না। ৩ থেকে ৫ মিনিট পরে চালু হবে। কারণ হটাত করে বিদ্যুৎ চলে গিয়ে আবার আসলে এটা ফ্রিজের জন্যে ক্ষতিকর। কম্প্রেসার দ্রুত নষ্ট হতে পারে। 
৩। বিদ্যুৎ চমকালে বা ঝড় বৃষ্টির সময় ফ্রিজের লাইন বা প্লাগ খুলে রাখবেন।

ফ্রস্ট ও নন ফ্রস্ট ফ্রিজের মধ্যে পার্থক্য

ফ্রস্ট -
১. ডিপ-এ রাখা খাবার জমে যায়।
২. খাবার ব্যবহারের আগে পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে।
৩. ডিপ-এ জমা বরফ মাঝে মাঝে পরিস্কার করতে হয়।
৪. কারেন্ট চলে যাওয়ার পরেও ৫-৬ ঘন্টা খাবার ভাল থাকে।
৫. বিদ্যুৎ খরচ কিছুটা কম।
নন ফ্রস্ট -
১. ডিপ-এ কোন বরফ জমবে না।
২. গোশ, মাছ বের করে সাথেসাথেই ধুয়ে ব্যবহার করা যাবে।
৩. কারেন্ট চলে গেলে ১-২ ঘন্টা খাবার ভাল থাকবে।
৪. বিদ্যুৎ খরচ কিছুটা বেশি।
যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ ঘনঘন যায় ও মাঝেমাঝে দীর্ঘসময় পরে আসে সেসব এলাকায় ফ্রস্ট ভাল হবে। আর সময় ও শ্রম বাঁচানোর জন্য নন-ফ্রস্ট ভাল।

ধরণ নির্বাচন

গৃহস্থালির উপকরণের সাথে মানানসই হওয়ার জন্য একটি রূপরেখা থাকে। বর্তমানে ফরাসি-দরজার মডেলগুলো খুব জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। অনেক ক্রেতারাই তলদেশীয় ফ্রিজারগুলোর প্রতি বেশি আকৃষ্ট হন, কিন্তু শীর্ষদেশীয় এবং দ্বিপার্শীয় ফ্রিজারগুলো ছোট আকৃতি রান্নাঘরে খুব সুন্দরভাবে মানিয়ে যায়।

সর্বোৎকৃষ্ট বাছাইয়ের জন্য আপনার যা জানা প্রয়োজন তা এখানে দেয়া হল।

প্রথম জিনিসঃ রেফ্রিজারেটরের ধরণ এবং দাম

আপনার ঘরের জন্য সর্বোৎকৃষ্ট রেফ্রিজারেটর হল যেটা আপনার গৃহস্থালির প্রয়োজনের সাথে সঠিকভাবে মানায়। এখানে আদর্শ রেফ্রিজারেটরের ধরণ, ধারণক্ষমতা, এবং দামের পরিসরের একটি বর্ণনা দেয়া হল।

শীর্ষদেশীয় ফ্রিজার (Top Freezer)

এটি একটি গতানুগতিক ফ্রিজ, যা যে কোন সংকটময় স্থানেও প্রচুর জায়গা দিতে পারে। এগুলো তাদের আকৃতির জন্য সবথেকে বেশি পরিমাণ জায়গা নিশ্চিত করে (সাধারণত ৩০ থেকে ৩৩ ইঞ্চি প্রশস্ত )। প্রস্তুতকারক কোম্পানি এর ধারণক্ষমতা ২২-ঘনফুট দাবি করছে, কিন্তু আমরা আমাদের পরীক্ষায় ২০% এর থেকেও কম পেয়েছি।

আপনি এর দরজাকে অনেক প্রশস্ত পরিসরে দোলাতে পারবেন, এবং তাক এবং ড্রয়ারকে নিচের দিকে নত করে ব্যবহার করতে পারবেন।

শীর্ষদেশীয় ফ্রিজারঃ এই ধরনের সর্বাধুনিক স্টাইলগুলো আপনাকে যথার্থ্য মূল্য সম্পর্কে  নিশ্চিত করবে। এতে শীতলীকরণ অংশটি উপরে থাকে। এর বৈশিষ্ট্যসমূহ নিচে দেয়া হল।

  • এই ধরনের অনাড়ম্বরপূর্ণ ফ্রিজগুলো তাদের মাপ অনুযায়ী প্রচুর ব্যাবহারোপযোগী জায়গা নিয়ে তৈরী হয়, বিশেষ করে যে সব রেফ্রিজারেটরগুলো পানীয় এবং আইসক্রিম রাখার জন্য ভিতরের যায়গা দখল করে তাদের সাথে তুলনাযোগ্য। এর গড় ধারণক্ষমতা হল ২০ ঘনফুট।
  • এরা অনেকটা ক্ষুদ্রাকৃতির, আদর্শ প্রস্থ পরিসীমা হল ৩০ থেকে ৩৩ ইঞ্চি পর্যন্ত।
  • এরা সবথেকে বেশি সাশ্রয়ী, ও নিম্নদেশীয় এবং দ্বীপার্শ্বীয় দরজার মডেলগুলোর তুলনায় ১০% থেকে ২৫% পর্যন্ত কম বিদ্যুৎ ব্যাবহার করে।

নিম্নদেশীয় ফ্রিজার (Bottom Freezer)

এদের প্রস্থ পরিসীমা ৩০ থেকে ৩৬ ইঞ্চি পর্যন্ত হয়ে থাকে এবং ধারণক্ষমতা ৩০ ঘনফুটের কাছাকাছি দাবি করা হয়, যদিও ব্যবহারোপযোগ্য জায়গা তুলনামূলকভাবে শীর্ষদেশীয় ফ্রিজারগুলোর থেকে কম ( যা দামের দিক থেকেও সাশ্রয়ী)।

ফ্রিজারের দৃষ্টিসীমার পরিবর্তে( যা আপনি কম ব্যবহার করেন), আপনার ফ্রিজের তাকগুলো সহজে দৃষ্টিগোচর হবে। আপনাকে শুধু জমাট বাধা জিনিসগুলোকে একটু নত হয়ে খোজা লাগবে।

নিম্নদেশীয় ফ্রিজারঃ  এগুলো খুব সুবিধাজনক, কারণ এরা রেফিজারেটর অংশটিকে দৃষ্টিসীমার মধ্যে রাখে, এবং দ্রব্যসামগ্রীগুলোকে হাতের নাগালে রাখে।

  • এর একটি দ্বিমুখী দরজাবিশিষ্ট মডেল আছে, যার উপরের দিকে এক দরজাবিশিষ্ট একটি রেফ্রিজারেটর আছে, আর নিচের দিকে একটি বড় দরজাবিশিষ্ট ফ্রিজার আছে। এদের গড় ধারণক্ষমতা ২২ ঘনফুট, এবং প্রস্থসীমা ৩০ থেকে ৩৩ ইঞ্চি পর্যন্ত।
  • একটি ফরাসী-দরজাবিশিষ্ট মডেল আছে, যার উপরে দ্বিপার্শ্বীয় দরজা এবং নিচের দিকে এক দরজা বিশিষ্ট ফ্রিজার আছে। এরা সাধারণত দুই দরজাবিশিষ্ট ফ্রিজগুলো থেকে বেশী প্রশস্ত হয়ে থাকে। এদের গড় ধারণক্ষমতা ২৪ ঘনফুট এবং প্রস্থ পরিসীমা ৩৩ থেকে ৩৬ ইঞ্চি হয়ে থাকে।
  • দাম প্রায় ৫০০০০ টাকা থেকে শুরু হয়েছে।

জ্ঞাতব্যঃ ১৯ থেকে ২২ ঘনফুট পরিমাণের স্টোরেজ স্পেসসম্পন্ন ফ্রিজ সাধারণত চারজনের পরিবারের জন্য খুব ভাল বাছাই হিসেবে গণ্য হয়।

ফরাসী দরজাবিশিষ্ট রেফ্রিজারেটর (French Door Refrigerator)

এর উপরের অংশে দুইটি সংকীর্ণ দরজা আছে, এবং নিচের দিকে ফ্রিজার আছে। অনেকসময় এই দুইয়ের মাঝে একটি অথবা একাধিক ড্রয়ার থাকে। প্রস্থ পরিসীমা ৩০ থেকে ৩৬ ইঞ্চি হয়ে থাকে। দাবীকৃত ধারণক্ষমতা ৩০ ঘনফুট, যদিও ব্যবহারযোগ্য খালি জায়গা সমমান জাতীয় অন্যান্য শীর্ষদেশীয় ফ্রিজারের সাথে মিলে না।

ছোট আকারের জিনিস রাখার জন্য জায়গা সংরক্ষণকারী ছোট দুল্যমান দরজাসমূহ অতিরিক্ত সুবিধা প্রদান করে। এরা এখন পানীয় সংরক্ষণের জন্য সবথেকে বেশি ব্যবহৃত হয়।

সাইডবাইসাইড রেফ্রিজারেটর (Side by Side Refrigerator)

এর এক পাশ ফ্রিজার এবং অন্য পাশ রেফ্রিজারেটর, এগুলোতে সাধারণত বরফের দরজা, জল নিয়ন্ত্রক এবং তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার প্রকোষ্ট আছে। এগুলো সাধারণত ৩২ থেকে ৩৬ ইঞ্চি প্রশস্থতার সাথে মোটামুটিভাবে ৩০ ঘন ফুট ধারণক্ষমতার দাবি করে ( যদিও শুধুমাত্র প্রায় ৭০% ব্যবহারযোগ্য)।

সংকীর্ণ দরজা ছোট রান্নাঘরের জন্য একটি উত্তম দিক, কিন্তু পিজ্জা বক্স বা এই ধরণের অন্যান্য জিনিস রাখার জন্য এত বেশি প্রশস্থ করা যায় না, এবং লম্বা ও সংকীর্ণ কুঠুরীর কারণে পিছনে সজ্জিত জিনিসগুলো খুঁজে বের করা খুব কঠিন হয়ে পড়ে।  সবকিছু মিলিয়ে, এরা খুব বিদ্যুৎ ও জায়গা সাশ্রয়ী নয়।

সাইডবাইসাইডঃ যেসব গৃহস্থালির জন্য ফ্রিজের স্পেস ফ্রিজারের স্পেসের তুলনায় কম হিসেবে বিবেচনা করা হয় না, এরা সাধারণত সেই সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

  • এরা উল্লম্বভাবে দুইভাগে বিভক্ত; যার একপাশ ফ্রিজার এবং অপর পাশ রেফ্রিজারেটর হিসেবে ব্যবহার করা হয়।
  • আনুমানিক প্রস্থ পরিসীমা ৩২ থেকে ৩৬ ইঞ্চি।
  • যদিও গড় ধারণক্ষমতা প্রায় ২৪ ঘনফুট, কিন্তু পানীয়, আইসক্রিম ও এই জাতীয় অন্যান্য দ্রব্যাদি যেগুলো ভিতরের স্থান দখল করে তা রাখার জন্য কিছুটা ছোট হতে পারে। ফ্রিজার এবং রেফ্রিজারেটরের মধ্যবর্তী বিভাজকও মাঝখানের অংশ থেকে অনেকটা জায়গা দখল করে।
  • দাম প্রায় 1,35000 থেকে শুরু হয়েছে।

 

চার দরজাবিশিষ্ট রেফ্রিজারেটরঃ এগুলো বড় পরিবারে জন্য খুব মানানসই।

  • এর প্রকোষ্টগুলো অনেক সময়ের জন্য দ্রব্যসামগ্রী সতেজ রাখতে পারে। গড় ধারণক্ষমতা হল ২৮ ঘনফুট।
  • এদের উপরিভাগ ফরাসী আকারের দরজা, মধ্যভাগ একটি লুকানো ড্রয়ার সম্বলিত দরজা ( যেখানে আপনি সর্বাধিক ব্যবহৃত দ্রব্যাদি রাখতে পারবেন), এবং নিম্নদেশীয় ফ্রিজার নিয়ে সজ্জিত।
  • এরা তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রক ও তরল পদার্থ সংরক্ষণ করার অংশ নিয়ে গঠিত।
  • দাম প্রায় ১৫০০০০ থেকে শুরু হয়েছে।

জ্ঞ্যাতব্যঃ ব্যবহারকারীরা একটি চার দরজাবিশিষ্ট ফ্রিজের প্রায় ৮০% অংশকে কার্যকরী সংরক্ষণ স্থান হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।

 

ক্যাবিনেটডেপথ  কাউন্টারডেপথ রেফ্রিজারেটরঃ এদের সামনের থেকে ভিতরের দিকে গভীর থাকে তাই এরা সমান ও বিপরীত দিক থেকে বেশি উঁচু হবে না।

  • এরা ফরাসী দরজা সম্বলিত নিম্নদেশীয় ফ্রিজার ও দ্বিপার্শীয় ফ্রিজার এই দুই ধরনের হয়ে থাকে।
  • উভয় স্টাইলই ২৮ ঘনফুট জায়গা প্রদান করে।
  • অনেক ধরনের মডেলগুলো তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রক এবং তরল পদার্থ ও বরফ সংরক্ষণাগার যাবতীয় বৈশিষ্ট্য সংযুক্ত করেছে।
  • দামের সাথে মানানসই করে একটি আকর্ষণীয় বিল্ট-ইন ডিজাইন তৈরি করতে, এই ফ্রিজগুলোর ক্যাবিনেট অংশগুলো পুনরায় সাজানো যায়।
  • দাম প্রায় ১৫০০০০ থেকে শুরু হয়েছে।

জ্ঞ্যাতব্যঃ আপনার রেফ্রিজারেটরের দরজা কিভাবে খুলতে পারবেন তার জন্য নির্দিষ্ট কোন নিয়ম নেই। একটি উলটা দরজা সম্বলিত অংশ আপনাকে দরজা ঘুরানোর দিক পরিবর্তন করতে সাহায্য করবে।

আপনার রেফ্রিজারেটর যদি কোন পূর্বনির্ধারিত অংশের সাথে লাগানো অবস্থায় থাকে, তাহলে আপনি কিভাবে তা ফিট করবেন তা নিচে দেয়া হলঃ

  • উচ্চতা, প্রশস্থতা, এবং গভীরতার মাপ নিন। সাইড,পিছন, এবং উপড়ের অংশের জন্য ন্যুনতম ১ ইঞ্চি পরিমাণ সূক্ষ্ম জায়গা নির্ধারণ করুন। যদি এইভাবে একটি দেয়ালের সাথে ভালভাবে স্থাপন করা যায় তাহলে দুই সাইডের জন্য ন্যূনতম ২ ইঞ্চি সূক্ষ্ম জায়গা নির্ধারণ করুন যাতে দরজাটিকে সম্পূর্ণরূপে খুলা সম্ভব হয়।
  • দরজার মাপটাকে মনে রাখুন। পার্শ্ব দেয়াল অথবা বিপরীত দেয়াল যাবতীয় কোন বাধা সম্পর্কেও ধারনা রাখতে হবে যাতে আপনার নতুন ফ্রিজের দরজা ডানে অথবা বামে ঝুলে থাকতে পারে।

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ীতা সম্পর্কে ধারণাঃ

সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৪ অনুযায়ী, এনার্জী স্টার এবং আমেরিকান বিদ্যুৎ সংস্থা ( DOE) রেফ্রিজারেটরের পূর্ববর্তী সময়ের বিদ্যুৎ সাশ্রয়ীর চাহিদা প্রকাশ করেছে।

DOE এর নতুন সর্বনিম্ন স্ট্যান্ডার্ড হল শীর্ষদেশীয়, নিম্নদেশীয়, এবং সাইড-বাই-সাইড রেফ্রিজারেটরসমূহ, যেহেতু তারা পূর্ববর্তী রেফ্রিজারেটরগুলো থেকে ২০% থেকে ৩০% বেশি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। গৃহ সরঞ্জাম স্ট্যান্ডার্ড সচেতনতা প্রকল্প, যা  যন্ত্রপাতি এবং আলোর মান উন্নয়ন দন্ড হিসেবে কাজ করে, তারা আনুমানিক বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী থেকে ১৯৯০ ও ২০১৪ মডেলসমূহকে নিম্নোক্তভাবে প্রকাশ করেছেঃ

শীর্ষদেশীয় ফ্রিজারঃ $৮০ প্রতি বছর।

নিম্নদেশীয় ফ্রিজারঃ $১০০ প্রতি বছর।

সাইডবাইসাইডঃ $১৩০ প্রতি বছর।

নতুন রেফ্রিজারেটরসমূহ যারা এনার্জী স্টারের বর্তমান মানদন্ডের সাথে মিলে যায় তারা তাদের পূর্ববর্তীগুলোর চেয়ে ১০% বেশি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। তারা DOE এর মানদন্ডের চেয়েও আরও ৯% বেশি সাশ্রয়ী।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ ফ্রিজগুলো যত বড় হবে, তারা তত বেশি বিদ্যুৎ খরচ করবে। এনার্জী স্টারের মতানুযায়ী সবথেকে বেশি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী মডেল হিসেবে আপনি ১৬ থেকে ২০ ঘনফুট ধারণক্ষমতার ফ্রিজগুলো কিনতে পারেন। এটিকে চার জনের পরিবারের জন্য ব্যবহার করলে ১৯ থেকে ২২ ঘনফুট বেশি গ্রহণযোগ্য।

পরামর্শঃ আপনার বাড়ি কিংবা গ্যারেজের জন্য দ্বিতীয় আরেকটি ফ্রিজ কিনতে চান? এটি যদি ১০ বছরের বেশি পুরনো হয়, তাহলে তা আপনার বাৎসরিক বিদ্যুৎ খরচ অনেক বাড়িয়ে দিবে। অন্যদিকে নতুন এনার্জি স্টার সম্বলিত নতুন ফ্রিজ ব্যবহার করলে এই খরচ ৪০% কমাতে পারবেন।

বিল্ট ইন ফ্রিজ

এগুলো দামি এবং ক্যাবিনেট ও কাউন্টার রেফ্রিজারেটর গুলোর মত প্রায় অনেকটা একরকম, এই ধরনের আকর্ষণীয় সুন্দর রেফ্রিজারেটরগুলো সাধারণত নিম্নদেশীয় কিংবা দ্বিপার্শ্বীয় মডেল থেকে এসে থাকে, কিন্তু কোন কোন সময় ফরাসী দরজা অথবা ছাড় দরজাবিশিষ্ট মডেলও হয়ে থাকে। এরা সাধারণত ২৫ ঘনফুট ধারণক্ষমতা সহ( যা ৭০% এরও বেশি ব্যবহারযোগ্য) খুব প্রশস্থ হয়ে থাকে ( ৩৬ ইঞ্চিরও অধিক)

আপনার রান্নাঘরের অভ্যন্তরের সাথে মিল রেখে একটি  সামনের বর্ধিত অংশসহ রেফ্রিজারেটর বাছাই করুন। কম দামের জন্য একটি ক্যাবিনেট-ডেপথ জাতীয় রেফ্রিজারেটরের খুঁজ করতে পারেন।

অন্যান্য বিল্টইন বাছাইসমূহঃ স্তম্ভাকৃতি ফ্রিজ, যেমন ১৮ ইঞ্চি সংকীর্ণ, যাতে যে কোন ধরনের রান্নাঘরের সাথে খাপ খাইয়ে যায়।

কমপ্যাক্ট  ছোট রেফ্রিজারেটরঃ

এগুলো ছাত্রাবাস, অফিস ও ছোট আকৃতির রান্নাঘরের জন্য খুব পারফেক্ট। মনে রাখবেন কিছু কিছু মডেলগুলোর ধারণক্ষমতা মাত্র সাধারণ ফ্রিজগুলোর  চার ভাগের এক ভাগ হয়ে থাকে, যদিও খরচ কর্মক্ষমতার উপর নির্ভর করে। কিছু মডেলের ক্ষেত্রে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণও সন্দেহজনক ( ৪০ ডিগ্রী ফারেনহাইটের উপরেও হতে পারে, যা ক্ষতিখারক ব্যাকটেরিয়া উৎপন্ন করে)। তাই আপনার বাচ্চার সোডা এবং অন্যান্য তরল পদার্থ সাবধানে রাখুন অথবা অস্থায়ী খাবার রাখার স্থানে রাখুন

আকারের পরিমাপ

বেশির ভাগ মডেলগুলোই বিস্তৃত আকার এবং ধারণক্ষমতা নিয়ে গঠিত। কিনার পূর্বে সব সময় আপনার কাংখিত সাইজটি মেপে নিন এবং পরীক্ষা করে দেখুন এটি আপনার দরজার সাথে ফিট হবে কিনা। রেফ্রিজারেটরের দরজাকে জন্য কক্ষের এর পাশে পর্যাপ্ত জায়গার ব্যবস্থা করুন, এবং পর্যাপ্ত বাতাস চলাচল করার জন্য পিছনে এবং সাইডে এক ইঞ্চি পরিমাণ জায়গা রাখুন।

বেশিরভাগ নির্মাতা কর্তৃপক্ষই চারজনের পরিবারের ধারণক্ষমতা সম্পর্কে ১৯ থেকে ২২ ঘনফুট সুপারিশ করে থাকেন। কিন্তু আপনি যদি বড় ধরনের কোন সাপ্তাহিক বাজার করে থাকেন, তাহলে আপনার জন্য আরও বেশি জায়গা প্রয়োজন- প্রায় ৩০ থেকে ৩৩ ঘনফুটেরও বেশি।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ আমরা আমাদের পরীক্ষায় পেয়েছি যে, এই পরিমাণ ব্যবহারযোগ্য জায়গা দাবীকৃত ধারণক্ষমতার চেয়ে কিছুটা কম।

 এনার্জীগাইড লেবেল সম্পর্কে জানুন

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ীতা ক্রেতাদের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এখনকার সব নতুন ফ্রিজগুলো আগেরগুলোর তুলনায় অনেক বেশি সাশ্রয়ী। এই সম্পর্কে এখানে একটি ধারণা দেয়া হল যা আপনাকে অধিক জানতে সাহায্য করবে।

কেনার পূর্বে EPA এনার্জী স্টার রেটিং দেখে নেয়া খুব প্রয়োজনীয় বিষয়; এটা বুঝায় যে একটি পণ্য বাজারে ২৫% এরও উপরে থাকতে পারে, কিন্তু সাশ্রয়ীতা মডেলভেদে ভিন্ন হতে পারে ( উদাহরণস্বরূপঃ একটি আনলেবেলকৃত টপ-ফ্রিজার ES-অনুমোদিত ফরাসী দরজার মডেলের থেকে বেশি সাশ্রয়ী হতে পারে)। অতিরিক্তহিসেবে, আমরা বিদ্যুৎ খরচও পরীক্ষা করে দেখেছি, যা প্রতি বছরে বাড়তি ৩৫০০-৪০০০ টাকা বেশি খরচ যোগ করে, এবং সম্পূর্ণ রেফ্রিজারেটরের সময়কাল হিসেব করলে যার পরিমাণ হয়৩৫০০০ টাকা।

একটির সাথে আরেকটিকে তুলনা করে সবথেকে বেশি সাশ্রয়ী মডেলটিকে খুঁজে বের করতে আপনার পছন্দের ফ্রিজগুলোর এনার্জী গাইড লেবেল দেখুন, এবং সর্বমোট অপারেটিং খরচ ও প্রতি বছরে ব্যবহৃত কিলোওয়াট-ঘন্টা তুলনা করুন।

ব্যবহারকারীর আকাংখিত পাঁচ ধরনের বৈশিষ্ট্য

পানীয় এবং বরফ রাখার দরজা

এই জিনিসটি ক্রেতারা সবথেকে বেশি চায়। বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ এই ধরনের উপযোগী মডেলেগুলোর জন্য সব থেকে বেশি মেরামতের প্রয়োজন হয়। বিদ্যুৎ খরচও অনেক বেশি এবং আপনাকে জায়গা সংরক্ষণের  জন্য বরফের পানি অপসারণ করতে হবে।

প্রচুর স্টোরেজ কম্পার্টমেন্ট ও সহজে সংরক্ষণ করার অপশনঃ

আপনাকে গ্যালন জাতীয় দরজার প্রকোষ্ঠ যা অভ্যন্তরীণ তাকের জায়গা খালি করে, পৃথক তাক যা লম্বা বোতলের জন্য জায়গাr ব্যবস্থা করে, পরিবর্তনযোগ্য তাক যা অতিরিক্ত বড় জিনিসের জন্য জায়গার ব্যবস্থা করে, এবং ফ্লেক্সিবল প্রকোষ্ঠ বণ্টনকারী যা জিনিসপত্র গ্রুপ আকারে রাখে এই যাবতীয় বৈশিষ্ট্যসমূহ অবশ্যই রাখতে হবে।

বাষ্প নিয়ন্ত্রক অংশঃ সব্জি জাতীয় জিনিসসমূহকে সাধারাণত অনেক আর্দ্র লেভেলে রাখতে হয়। এই বৈশিষ্ট্যটি আপনাকে সঠিক বাষ্পীয় লেভেলে জিনিসপত্র রাখার নিশ্চয়তা প্রদান করে যেন তারা অধিক সময় সতেজ থাকে। বাষ্প-নিয়ন্ত্রক কম্পার্ট্মেন্ট সম্বলিত রেফ্রিজারেটর সমূহ প্রায় $১২০০ থেকে শুরু হয়েছে।

অতিরিক্ত আলোকব্যবস্থাঃ বিদ্যুৎসাশ্রয়ী LED লাইট কোনায় এবং প্রকোষ্ঠসমূহের উপরে থাকলে তা জিনিসপত্র সহজে খুঁজে পেতে সাহায্য করে।

দরজার এলার্মঃ যখন ফ্রিজের দরজা সম্পূর্ণ বন্ধ না হবে তখন এটি আওয়াজ দিবে, যা বিদ্যুৎ অপচয় এবং খাবার নষ্ট হওয়া থেকে রক্ষা করে।

পরামর্শঃ একবার আপনার পছন্দের ফ্রিজটি পেয়ে গেলে, রেফ্রিজারেটর price নিয়ে বিক্রেতার সাথে দর কষাকষি করতে,ফ্রিজ পরিস্কার এবং ফ্রিজ চালানোর নিয়ম, আপনার পছন্দের মডেল রেফ্রিজারেটর কিভাবে কাজ করে সংকোচ বোধ করবেন না।

তথ্য - ইন্টারনেট

Loading...
advertisement
সর্বশেষ সংবাদ
এ বিভাগের সর্বশেষ